মহিলাদের সাহস জোগাবে ‘অভয়া’, নিরাপত্তা দেবে এবার একটি অ্যাপ



এবার মা বোনদের সাহস যোগাতে এল অভয়া। আসানসোল দূর্গাপুর পুলিশ কমিশনারেট আনলো নতুন এক অ্যাপ। যা নারীর অতন্দ্র প্রহরীর কাজ করবে। গোটা দেশ যখন উথালপাথাল ধর্ষণের ঘটনায়। দেশের সমস্ত মা, বোন, দিদি, স্ত্রী যখন নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। এমনকি বাদ পড়ছে না ফুটফুটে পরীর মতো ছোট মেয়ে। সকালে খবরের পাতা খুলতেই যে সময়ে চোখে পড়ে কোনো না কোনো নারীর ধর্ষণ বা খুনের মতো ঘটনা। ঠিক সেই সময়ে এক অভাবনীয় চিন্তাধারা নিয়ে হাজির হল পুলিশ কমিশনারেট।

 

নারী নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখে এক নতুন অ্যাপ নিয়ে এলেন পুলিশকর্তারা। অ্যাপের নাম দেওয়া হয়েছে ‘অভয়া’। সময় অসময়ে বিপদে পড়লে নারীদের পুলিশি সাহায্য পেতে সাহায্য করবে এই অ্যাপ। সব রকমের বিপদে, সমস্যার সমাধানে ও পুলিশের সাহায্য পাবেন এই অ্যাপের মাধ্যমে নারীরা। বৃহস্পতিবার থেকে চালু হল অভয়া অ্যাপ। এই অ্যাপ ছাড়াও এদিন মহিলাদের জন্য একটি হেল্পলাইন নম্বর ও ই-মেইল চালু করা হল পুলিশের পক্ষ থেকে। অ্যাপটি নিজের স্মার্ট ফোনে ডাউনলোড করে নিলেই এর সুবিধা পাবেন মহিলারা।

 

আসানসোল-দুর্গাপুর পুলিশ কমিশনারেট অফিসে পুলিশ কমিশনার সুকেশ জৈন সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে মহিলাদের জন্য এই অ্যাপ চালু সহ একাধিক সুবিধার কথা জানান। এই অ্যাপের সাইজ খুব ছোট, মাত্র ৪.৮ এমবি। স্মার্ট ফোনে গিয়ে গুগল প্লে-স্টোর থেকে খুব সহজেই ছোট্ট এই অ্যাপটি নামিয়ে ফেলতে পারবেন সকলে। এরপর অটিপির সাহায্যে নিজের নাম নথিভুক্ত করিয়ে ব্যবহার করা যাবে এই অ্যাপ। অ্যাপটি সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা দিলেন পুলিশ কমিশনার। এই অ্যাপে আছে একটি লাল রঙের প্যানিক বাটন। সেই বাটন তিনবার টিপলেই সেটি সবুজ হয়ে যাবে। সঙ্গে সঙ্গে সে খবর পৌছে যাবে কাছাকাছি থানায়, আসানসোল দূর্গাপুর পুলিশ কন্ট্রোলরুমে। খবর পৌছবে এসিপি পদমর্যাদা আধিকারিকের ফোনেও। এই অ্যাপ যে বা যিনি ব্যবহার করবেন তাঁর লোকেশন জানতে পারবেন পুলিশ। এবং চটজলদি ঐ মহিলাকে সাহায্যের পদক্ষেপ নেবেন পুলিশ।

এছাড়াও শিল্পাঞ্চলের কাছাকাছি কেউ বিপদে পড়লে ওই অ্যাপের প্যানিক বাটনে ক্লিক করলে সঙ্গে সঙ্গে কাজ হবে। পুলিশ কমিশনার আরও বলেন, আগামী দিনে নারী সুরক্ষার জন্য অন্যতম ভূমিকা পালন করতে চলেছে এই অ্যাপ। এই অ্যাপটি, পুলিশ কমিশনারের আওতায় থাকা বুদবুদ থানা এলাকা থেকে চিত্তরঞ্জন পর্যন্ত কাজ করবে।  এদিনের সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, এডিসিপি (সেন্ট্রাল) সায়ক দাস, এডিসিপি (ট্রাফিক) রাহুল দেব ও এসিপি (সেন্ট্রাল) সৌম্যদীপ ভট্টাচার্য। পুলিশ কমিশনার তার বক্তব্যে জানান, ইতিমধ্যেই প্রতিটি থানাতেই মহিলা পুলিশকর্মী নিয়োগ করা হয়েছে। পাশাপাশি আসানসোল দূর্গাপুরে দুটি মহিলা থানা রয়েছে। নারী সুরক্ষার পদক্ষেপ হিসেবে এদিন একটি হেল্পলাইন চালু করার কথাও জানান তিনি। মহিলাদের জন্য ঐ হেল্পলাইনে কেউ ফোন করলে তা সঙ্গে সঙ্গে রেকর্ড হবে পুলিশের কন্ট্রোল রুমে। এবং তা থেকেই পুলিশ নেবে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা। এছাড়াও তিনি জানান, womenseftyyadpc@gmail.com নামে একটি মেল চালু করা হয়েছে পুলিশের পক্ষ থেকে। এই মেলের মাধ্যমে ও আলাদা করে অভিযোগ জানাতে পারবে মহিলারা।

error: