বিদ্যাসাগরের জন্মশত বার্ষিকী পালিত হলো বারাসাতে, আয়োজন করলেন নজরুল চর্চা কেন্দ্র



এহসানুল হক,বারাসাতঃ নজরুল চর্চা কেন্দ্র আয়োজিত বিদ্যাসাগরের দ্বিশততম জন্মবার্ষিকীতে গ্রন্থ প্রকাশ অনুষ্ঠান বারাসাতে।
উত্তর ২৪ পরহনার বারাসাত সুভাষ ইনস্টিটিউট হলে নজরুল চর্চা কেন্দ্র আয়োজিত – ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর দুইশত তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আনুষ্ঠানিকভাবে “সাগর বহ্নি” নামক বই প্রকাশ করা হয়। বইটি প্রকাশ করেন বিশিষ্ট সাহিত্যিক শ্রী অমিও ধর। নজরুল চর্চা কেন্দ্রের সভাপতি ও “সাগর বহ্নি” -র মাননীয় সম্পাদক অধ্যাপক ড. সেখ কামালউদ্দীন বলেন, এই ধরনের একটি গ্রন্থ প্রকাশ করতে পেরে আমরা নিজেরাই আনন্দিত,আপ্লুত।প্রত্যেক সদস্যের নিরলস প্রচেষ্টায় এই প্রয়াস সম্ভব হয়েছে। এদিন তিনি,পুস্তক প্রকাশের সঙ্গে যুক্ত সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। সংস্থার সম্পাদক ও বিশিষ্ট শিক্ষক শাহজাহান মন্ডল স্মারক বক্তৃতায় বলেন, ঈশ্বরচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায় এই নাম বাংলায় শিক্ষা- সংস্কৃতির- সামাজিক ক্ষেত্রে বহুল প্রচলিত। তবে তার থেকে বেশি পরিচিত তার উপাধি প্রাপ্ত নাম “বিদ্যাসাগর”। বিশ্ব সাহিত্যে শুধু নয়, বিশ্বমানবতার ইতিহাসে বিরল কৃতিত্বের সম্ভবত একমাত্র উদাহরণ তিনি। 200 বছর অতিক্রান্ত হয়ে গেল বাঙালি মননে চিন্তনে তিনি স্মরণীয়। যতদিন বাঙালি থাকবে, বাংলা ভাষা থাকবে ততদিন তিনিও থাকবেন।
বইটিতে দু’শো কবিতা সংবলিত এই গ্রন্থখানি সংকলিত করা হয়। সিরাত সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার অ্যান্ড এডুকেশনাল ট্রাস্টের রাজ্য সম্পাদক ও বিশিষ্ট শিক্ষক আবু সিদ্দিক খান বলেন, করোনা আবহে এই রকম মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক ও বিদ্যাসাগরের দ্বিশততম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে ২০০ কবিতা সংবলিত গ্রন্থ প্রকাশ অনুষ্ঠান নির্ধারিত দিনে যথাসময়ে করা, সত্যি প্রশাংসার দাবি রাখে নজরুল চর্চা কেন্দ্র। আমাদের বিদ্যাসাগরের নাম মনে পড়লে প্রথমেই সেই “বর্ণপরিচয়”-এর কথা মনে পড়ে, যে বইয়ের হাত ধরে শিশুর হাতেখড়ি হয়। বিদ্যাসাগর মায়ের চিকিৎসার জন্য, সেবার জন্য বৃটিশ সরকারের কাছে ছুটি চাইলে,ছুটি মঞ্জুর না করায় নিজের চাকুরীটাও ছেড়ে মায়ের সেবার জন্য চলে আসেন। আজ এই অনুষ্ঠান থেকে আমারা অঙ্গীকারবদ্ধ হই যাতে আমাদের মাতাপিতা একজনও যেন বৃদ্ধাশ্রমে না যায়।
এছাড়া অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন আরম্ভ পত্রিকার সম্পাদক বাহারউদ্দিন, সাহিত্যকর্মী উসমান গনী প্রমুখ। উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট সাহিত্যিক, কবি রক্তিম ইসলাম, সিরাতের রাজ্য কমিটির সাজ্জাদ আলি, সেখ আজহারউদ্দীন, রেজওয়ানুল হাবিব, গতির সাংবাদিক আয়ুব আলি প্রমুখ। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন প্রসেনজিৎ রাহা, শৈকত মন্ডল, প্রিয়া রাহা।

error: